ডিগ্রি ২য় বর্ষ(২০১৯-২০) নিয়মিত ও প্রাইভেট শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফরম পূরণ চলবে ৭/০২/২০২৩ থেকে ৭/০৩/২০২৩ পর্যন্ত। *পরীক্ষা হবে কেন্দ্র খালি থাকলে এপ্রিলের শুরুতে বা ঈদের পরপরই। কলেজসমূহে ফরম পূরণ ফি ১৫০০ এর মধ্যে।

সোনালী কাবিন : ৫’ কবিতার কাব্যসৌন্দর্য নিরূপণ কর

উত্তর৷ ভূমিকা : আধুনিক বাংলা কাব্য সাহিত্যে উজ্জ্বলতম নক্ষত্র কবি আল মাহমুদ। তিনি যান্ত্রিক জীবনের কোলাহল থেকে নিসর্গের কাছে ফিরে গেছেন। তাঁর ‘সোনালী কাবিন : ৫’ শীর্ষক নিটোল কবিতাটি কবিকৃতীর নিদর্শন। এটি তাঁর অনন্য সৃষ্টি।
কবিতার গঠন : ‘সোনালী কাবিন : ৫’ কবি আল মাহমুদের একটি অনবদ্য সনেট। আধুনিক সনেটের গঠনরীতি এতে পূর্ণরূপে লক্ষ করা যায়। আঠার অক্ষর বিশিষ্ট আধুনিক সনেটরীতির পঙক্তিসজ্জা এতে গৃহীত হয়েছে। ছন্দের গতিময়তা ভাবের প্রবাহকে ধারণ করেছে।
কবিতার ভাবার্থ : ‘সোনালী কাবিন’ কবিতার বিষয়বস্তু প্রেম ও নিসর্গ ভাবনা। মানব-মানবীর শরীরী প্রেম এ কবিতাকে আশ্রয় করেছে। অশরীরী প্রেমের জয়গান এ কবিতায় নেই। চর্যাপদের যুগে নিসর্গের কাছে ফিরে গেছেন কবি। মহুয়ার মাতাল করা নির্যাস পানে শরীরী মিলনের মাধ্যমে পূর্ণতা পেয়েছে এভাবে-


‘কোথায় রেখেছো বলো মহুয়ার মাটির বোতল
নিয়ে এসো চন্দ্রালোকে তৃপ্ত হয়ে আচমন করি।’


ইতিহাস ও ঐতিহ্য ভাবনা : সময় পরিবর্তনশীল। কবি যুগ-যুগান্তর পেরিয়ে বর্তমান সভ্যতায় এসে দাঁড়িয়েছেন। বাঙালির সুপ্রাচীন ঐতিহ্য তিনি লালনপালন করেছেন। কোন ঐতিহ্যকে তিনি অস্বীকার করেননি। চর্যাপদের জীবনচিত্র, প্রেমলীলা, মহুয়ার নির্যাস, গ্রিস, মিশর প্রভৃতি সভ্যতার মধ্যে যোগসূত্র স্থাপন করেছেন।
প্রকৃতি ভাবনা : নিসর্গ ভাবনা কবিকে মুগ্ধ করেছে। প্রকৃতির কাছ থেকে শিখেছেন আত্মনির্মাণের প্রেরণা। যৌনতার মদে 10: মত্ত হওয়ার প্রেরণা পেয়েছেন প্রকৃতির কাছ থেকে। নিসর্গের কাছ থেকে দীক্ষা সম্পর্কে কবি বলেছেন-


“নিসর্গের গ্রন্থ থেকে, আশৈশব শিখেছি এ পড়া
প্রেমকেও ভেদ করে সর্বভেদী সবুজের মূল।”


কবিতার আঙ্গিকগত বৈশিষ্ট্য : ‘সোনালী কাবিন : ৫’ চৌদ্দ অক্ষরের রীতিকে অনুসরণ না করে চৌদ্দ পঙক্তির রীতিকেই অবলম্বন করা হয়েছে। এতে একটি অখণ্ড ভাব আছে। এটি চতুর্দশ পঙক্তিবিশিষ্ট কবিতা। ঘটক ও অষ্টক মিলে একটি পূর্ণাঙ্গ কবিতা নির্মিত হয়েছে। এতে ভাবের গভীরতা ও ভাষার ঋজুতা বিদ্যমান।
ভাবের অখণ্ড প্রবাহ : ‘সোনালী কাবিন : ৫’ কবিতাটিতে প্রেম ও নিসর্গপ্রীতি সম্পর্কে কবির একান্ত অনুভূতি ঐতিহ্য ও ইতিহাস অবলম্বনে উপযুক্ত শব্দ সুষমায় অখগুরূপে উপস্থাপিত হয়েছে। অষ্টক অংশে কবি তাঁর প্রেমভাবনা সম্পর্কে ইঙ্গিতপূর্ণ প্রস্ত বিনার অবতারণা করেছেন। শরীরী প্রেমের প্রতি কবির আত্মনিষ্ঠ সমর্থন ও প্রেমের উদ্দামতা সম্পর্কে যে সরল স্বীকারোক্তি অষ্টকে
ধ্বনিত হয়েছে, ষটকে এসে তার বিস্তৃতি দেয়া হয়েছে। শরীরী প্রেমের চিরন্তনতার বিষয়টি সময়ের কষ্টিপাথরে বাঁধা। অর্থাৎ অষ্টক ও ঘটক মিলে একটি ভাবের মীমাংসা হয়েছে।
প্রেম চিরন্তন : শরীরী প্রেমের জয়গান তাঁর এ কাব্যে ধ্বনিত হয়েছে। নিষ্কাম প্রেমের আত্মপ্রবঞ্চনায় কবি অবগাহন করেননি। কালের গহ্বরে সবকিছু বিলীন হয়ে যায়। যেমন বিলীন হয়ে গেছে গ্রিস, মিসর ও সেরাসিন সভ্যতা। কিন্তু প্রেম চিরন্তন। দেশ-কাল, পাত্রভেদে প্রেমের আবেদন কখনো পরিবর্তন হয়নি। আবহমান কাল ধরে এ ধারা প্রবহমান।
ভাষা ব্যবহার : কবি তাঁর ‘সোনালী কাবিন : ৫’ কবিতায় ইতিহাস, ঐতিহ্য ও লোকজ জীবনের প্রেম বর্ণনায় দেশজ ভাষা ব্যবহার করছেন। কবির প্রেমিকা কানে কার্পাসের ফুল, গলায় গুঞ্জার মালা পরেছে। মহুয়া ফুলের নির্যাস পান করে শবরী হবে মদে মত্ত। এসব ভাষাশৈলী আমাদের দেশজ ও লোকজ।
উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে বলা যায় যে, ‘সোনালী কাবিন : ৫ কবি আল মাহমুদের ঐতিহ্যমূলক কবিতা। ভাষাশৈলী ও শব্দ চয়ন নিপুণ হাতে চয়িত হয়েছে এ কাব্যে। ফলে এ কবিতাটি শিল্পোত্তীর্ণ হয়েছে। আধুনিক বাংলা কবিতার জগতে এ কবিতাটি উজ্জ্বলতম নক্ষত্র।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!