ডিগ্রি ২য় বর্ষ(২০১৯-২০) নিয়মিত ও প্রাইভেট শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফরম পূরণ চলবে ৭/০২/২০২৩ থেকে ৭/০৩/২০২৩ পর্যন্ত। *পরীক্ষা হবে কেন্দ্র খালি থাকলে এপ্রিলের শুরুতে বা ঈদের পরপরই। কলেজসমূহে ফরম পূরণ ফি ১৫০০ এর মধ্যে।

সুফি দর্শনের মানবতাবাদী আদর্শ ব্যাখ্যা কর।

অথবা, সুফি মানবতাবাদী ভাবধারা সংক্ষেপে আলোচনা কর।
অথবা, সুফি দর্শনের আলোকে মানবতাবাদ সংক্ষেপে বর্ণনা কর।
অথবা, সুফিবাদের মানবতাবাদী দৃষ্টিভঙ্গি সংক্ষেপে ব্যাখ্যা কর।
অথবা, সুফি মানবতাবাদ কী?
উত্তর।৷ ভূমিকা :
শাশ্বত, চিরন্তন ও সর্বব্যাপ্ত পরম সত্তাকে জানার ও পাওয়ার বাসনা মানুষের চিরন্তন ও সহজাত প্রবৃত্তি প্রসূত। আর এ প্রবৃত্তিজাত বাসনা চরিতার্থ করার অনুশীলিত পথ বা পদ্ধতিই দার্শনিক চিন্তার জগতে মরমিবাদ নামে খ্যাত। এ মরমি আদর্শের টানেই মানুষ জগৎসংসার সবকিছু ত্যাগ করে একমাত্র পরমসত্তার দিদার লাভের পথে নিজেকে উৎসর্গ করতেও দ্বিধান্বিত হন না। ইসলামি জীবনাদর্শে বিকশিত মরমি দিকটিই তাসাউফ বা সুফিবাদ নামে পরিচিত। সুফিবাদ আল্লাহর প্রেম ও ধ্যানভিত্তিক একটি মরমি চিন্তাধারা হলেও মানবতার বাণী এতে উপেক্ষিত হয়নি বরং গৃহীত হয়েছে অত্যন্ত তাৎপর্যের সঙ্গে।
সুফি মানবতাবাদী আদর্শ/ ভাবধারা : সুফিবাদ উদার ও মানবতাবাদী আদর্শের একনিষ্ঠ ধারক ও প্রচারক। সুফিবাদ আল্লাহর ধ্যান অনুধ্যানমূলক মরমিবাদী চিন্তাধারা হলেও সুফি সাধক এবং সুফি দার্শনিকেরা শুধু পরম সত্তার অস্তিত্ব অনুভব ও তাঁর সাথে আধ্যাত্মিক মিলনেই সবকিছুর পরিসমাপ্তি চাননি বরং তাঁরা প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছেন মানবতাবাদের সুমহান আদর্শকে। তাঁরা মানুষে মানুষে সকল প্রকার ভেদাভেদের ঘোর বিরোধী ছিলেন। তাঁরা মনে করেন, সকল মানুষ যদি একই স্রষ্টার সৃষ্টি হয় এবং সকল মানুষের মূল উৎস যদি একই হয়ে থাকে তাহলে বিভিন্ন অজুহাতে মানুষে মানুষে বিভেদের যুক্তিটা কোথায়? তাঁরা বিভেদকে মানতেন না। তাই দেখা যায় তাঁদের চিন্তায় কখনোই স্থান পায়নি সম্প্রদায়িক সংকীর্ণতা ও ধর্মীয় অসহিষ্ণুতা। এ কারণেই বাংলায় সুফিদের সহজসরল ও আদর্শিক জীবনধারাকে সকল সম্প্রদায়ের মানুষ শ্রদ্ধা করতেন সমভাবে। সুফিরা তাঁদের মানবতাবাদী আদর্শকে কোন সংকীর্ণ দেশ বা গণ্ডির মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখেননি। বরং সচেষ্ট হয়েছেন বৈশ্বিক রূপদানে। তাঁদের মতে, সকল মানুষ যেহেতু পরম স্রষ্টার সৃষ্টি সেহেতু সকল মানুষের কল্যাণ করা বা চাওয়া প্রতিটি মানুষের কর্তব্য।
সুফি মানবতাবাদী আদর্শের মূল উৎস কুরআন ও হাদিসভিত্তিক ইসলামি মানবতাবাদী দৃষ্টিভঙ্গি। ইসলামের সাম্য মৈত্রী ও ভ্রাতৃত্বের মানবতাবাদী বাণীই সুফিরা ধারণ করেছেন মনেপ্রাণে এবং প্রচার করেছেন দেশে দেশে। সুফিদের প্রচারিত সাম্য, মৈত্রী ও ভ্রাতৃত্বের বাণীই মধ্যযুগের বাংলায় বর্ণ বিভক্ত হিন্দু সমাজের বঞ্চিত ও অবহেলিত নিম্ন বর্ণের লোকদের এবং বৌদ্ধ সম্প্রদায়কে মুগ্ধ করতে সক্ষম হয়েছিল অতি সহজেই। সুফিদের প্রচারিত এ মানবতাবাদের বাণীই তাদের মধ্যে আশার সঞ্চার করেছিল স্বকীয় মর্যাদা নিয়ে নতুনভাবে বাঁচার। যার দরুন তারা পৈতৃক ধর্ম ত্যাগ করে দলে। দলে সমবেত হয়েছিলেন ইসলামের পতাকা তলে এবং ফিরে পেয়েছিলেন তাদের মানবিক ও সামাজিক মর্যাদা। তাই ঐতিহাসিকরা বলে থাকেন, মধ্যযুগে বাংলায় সুফিবাদী ভাবধারা বিকাশের সাথে সাথে এদেশে মানবতাবাদী সমাজেরও গোড়াপত্তন হয়েছিল। সুফিদের মানবতাবাদী দৃষ্টিভঙ্গির একটি চিত্তাকর্ষক বর্ণনা আমরা দেখতে পাই তাঁদের অনুসৃত নূরনবী তত্ত্বে। সুফিরা নূরনবীকে আধ্যাত্মিক জ্ঞানের আধার এবং সৃষ্টির মূল কারণ হিসেবে ধারণ করলেও তাঁরা কেবল নূরনবীর আধ্যাত্মিক মহত্ত্বেই মগ্ন থাকেন না বরং নূরনবীর মানবিক দিকের উপরও বিশেষ গুরুত্বারোপ করে থাকেন। বাংলার নব্য সুফিদের মতে, নূরনবী মানুষ সোনার মানুষ, মানুষ রতন; সুফি পরিভাষায় ইনসানুল কালেম বা পূর্ণমানব। আর ইকবালের ভাষায় মর্দে মুমিন। সুফিরা বিশ্বাস করেন আল্লাহ্ বিশ্বের মানুষের মাঝে মানুষ রতন রূপে পূর্ণাঙ্গভাবে আত্মপ্রকাশ করেন। তাই তাঁদের মতে, মানব দেহেই কাবা, গুপ্ত মক্কা, নূরদিল মক্কা। এ দেহে আল্লাহর অধিষ্ঠান। তাই তাঁরা দেহের সাধনা করেন। মানবের মধ্যেই খুঁজে বেড়ান পরম মানব বা পরম সত্তা আল্লাহকে। সুফিদের এ সাধন পদ্ধতি সুস্পষ্টই মানবতার জয়গান করে।
উপসংহার : অতএব সুফি দর্শন বাস্তব মানবজীবন ও মানবতা বর্জিত শুধু আধ্যাত্মিক চর্চা নির্ভর পরলোক আশ্রিত দর্শন নয়। বরং মানুষ এবং মানবতার বাস্তব জীবনাদর্শের সাথে গভীরভাবে সম্পৃক্ত। মানুষে মানুষে সকল ভেদাভেদকে অস্বীকার করে সুফিরা মানবতার যে জয়গান গেয়েছেন তার সুরেই কম্পিত হয়েছে সমগ্র বাংলা এবং ইসলাম ধর্ম পৌছাতে সক্ষম হয়েছিল একেবারেই সাধারণ বাঙালির হৃদয় মন্দিরে।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!