ডিগ্রি ২য় বর্ষ(২০১৯-২০) নিয়মিত ও প্রাইভেট শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফরম পূরণ চলবে ৭/০২/২০২৩ থেকে ৭/০৩/২০২৩ পর্যন্ত। *পরীক্ষা হবে কেন্দ্র খালি থাকলে এপ্রিলের শুরুতে বা ঈদের পরপরই। কলেজসমূহে ফরম পূরণ ফি ১৫০০ এর মধ্যে।

স্থানীয় সরকার পরিকল্পনা বলতে কী বুঝ? স্থানীয় পরিকল্পনার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বর্ণনা কর ।

অতীত ও বর্তমান অভিজ্ঞতার আলোকে ভবিষ্যৎ কার্য সম্পাদনের সুচিন্তিত ও কার্যকর পদ্ধতি হচ্ছে পরিকল্পনা। কেন্দ্রীয় পকিল্পনার ত্রুটিগুলো পরিহার করার জনই আঞ্চলিক বা স্থানীয় পর্যায়ে পরিকল্পনার উদ্ভব ঘটেছে।
স্থানীয় সরকার পরিকল্পনা : সামাজিক, রাজনৈতিক বাস্তবতার নিরিখে প্রতিটি স্বতন্ত্র বৈশ্যিষ্ট্যপূর্ণ অঞ্চলগুলোর বিশেষ ধরনের প্রয়োজনের প্রকৃতির উপর গুরুত্ব দিয়ে অঞ্চলভিত্তিক পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হলে তাকে বলা হয় আঞ্চলিক পরিকল্পনা বা স্থানীয় পরিকল্পনা। কেন্দ্রীয় সরকারের মন্ত্রণালয় হতে আরোপিত সম্পদ এবং স্থানীয় সম্পদের ভিত্তিতে জনগণের অংশগ্রহণ ও স্থানীয় কর্তৃক্ষের সাথে মত বিনিময়ের মাধ্যমে যে পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয় তাকে স্থানীয় পরিকল্পনা বলে। স্থানীয় পরিকল্পনা কেন্দ্রীয় পরিকল্পপনার বিপরীত দিক। কেন্দ্রীয় পরিকল্পনাকে Top down System হিসেবে ধরা হলে স্থানীয় পরিকল্পনাকে Bottom up System হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আমরা স্থানীয় পরিকল্পনা বলতে এমন একটি পরিকল্পনাকে বুঝি যার সাহায্যে স্থানীয় পর্যায়ের জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা পূরণ সম্ভব। এটা হলো ক্ষমতা হস্তান্তরের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানকে যথার্থ আনুভূমিক ও সমান্তরাল সংযুক্তসহ আত্মনির্ভর ইউনিট হিসেবে শক্তিশালীকরণ । যাতে করে তৃণমূল পর্যায়ে সম্পদের গতিশীলতা আনয়ন ও জনগণের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা যায়। অর্থাৎ স্থানীয় পরিকল্পনা হচ্ছে, বিকেন্দ্রীভূত পরিকল্পনা, সেক্টর পরিকল্পনা (কৃষি, শিল্প), আঞ্চলিক পরিকল্পনা, বিশেষ পরিকল্পনা এবং নিম্নস্তরের পরিকল্পনা ইত্যাদি। স্থানীয় পরিকল্পনার সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে জনগণের প্রকৃত চাহিদা এবং অগ্রাধিকার যথাযথ প্রতিফলন ঘটানো। স্থানীয় পরিকল্পনার অসুবিধা হচ্ছে এটা দীর্ঘসূত্রিতায় আক্রান্ত হতে পারে। এছাড়াও জনবল অর্থের বিবেচনায় ব্যয়বহুল হতে পারে।
স্থানীয় সরকার পরিকল্পনার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য : স্থানীয় সরকার পরিকল্পনার প্রধান লক্ষ্য বা উদ্দেশ্যই হচ্ছে জাতীয় জনগণের সামগ্রিক উন্নয়ন ও কল্যাণ সাধন। সামগ্রিক বিচারে স্থানীয় সরকার পরিকল্পনা লক্ষ্য বা উদ্দেশ্যকে দুইভাগে ভাগ করা যায়। যথা :
ক. স্বল্পমেয়াদি উদ্দেশ্য, খ. দীর্ঘমেয়াদি উদ্দেশ্য ।
ক. স্বল্পমেয়াদি উদ্দেশ্য ( Short term objectives ) : স্থানীয় সরকার স্থানীয় পর্যায়ের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে নিম্নোক্ত স্বল্পমেয়াদি উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করে। যথা :
১. পল্লির জনসাধারণকে সচেতন করা : পল্লির জনসাধারণকে তাদের চাহিদা সম্পর্কে অবহিত এবং সম্পদের অবস্থা নির্ধারণ করা। জনগণের মতামত গ্রহণ এবং সম্পদের অবস্থানের ভিত্তিতে তাদের পরিকল্পনার বাস্তবায়নের পথ প্রশস্ত করা।
২. বহুমুখী উন্নয়ন কাঠামো প্রস্তুতকরণ : স্থানীয় সরকার সরকারি অনুদান ও স্থানীয় সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহারের মাধ্যমে বহুমুখী উন্নয়নের জন্য কাঠামো তৈরি করে থাকে।
৩. স্থানীয় জনগণের দক্ষতা বৃদ্ধি : স্থানীয় পর্যায়ের পরিকল্পনার প্রস্তুত করার জন্য স্থানীয় লোকজনের দক্ষতা বৃদ্ধি করা স্থানীয় সরকার পরিকল্পনায় একটি উল্লেখযোগ্য স্বল্পমেয়াদি উদ্দেশ্য।
খ. দীর্ঘমেয়াদি উদ্দেশ্য : স্থানীয় সরকার পরিকল্পনার যেসব দীর্ঘমেয়াদি লক্ষ্য বা উদ্দেশ্য রয়েছে তা নিম্নরূপ :
১. জাতীয় ও আঞ্চলিক পরিকল্পনার সমস্বয়সাধন : জাতীয় পরিকল্পনার সাথে আঞ্চলিক পরিকল্পনাসমূহকে একত্রিত করা স্থানীয় সরকার পরিকল্পনার একটি দীর্ঘমেয়াদি গুরুত্বপূর্ণ উদ্দেশ্য। ও খাতওয়ারি
২. বিকেন্দ্রীকরণ পরিকল্পনায় সাহায্য করা : স্থানীয় সরকার উন্নয়ন প্রশাসনকে বিকেন্দ্রীকরণ পরিকল্পনা প্রণয়নের জন্য তথ্য সংগ্রহ এবং সরবরাহ করার প্ররিকল্পনা গ্রহণ করে থাকে।
৩. স্থানীয় ও জাতীয় পরিকল্পনা প্রণয়নে তথ্য সংগ্রহ : স্থানীয় সরকার স্থানীয় পর্যায়ের নানা তথ্য সংগ্রহ করে তা জাতীয় পর্যায়ে সরবরাহ করে থাকে। ফলে জাতীয় পর্যায়ের পরিকল্পনা গ্রহণ সহজ হয় এবং স্থানীয় পর্যায়ের উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণে এসব তথ্য কাজে লাগে।
উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে বলা যায় যে, কেন্দ্রীয় পরিকল্পনার ত্রুটিগুলো পরিহার করার জন্যই স্থানীয় সরকার পরিকল্পনার উদ্ভব ঘটেছে। কিন্তু সম্পদের সীমাবদ্ধতা এবং পরিকল্পনা অনুযায়ী সকল কাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য স্থানীয় সরকার তার সকল পরিকল্পনা একই সময়ে সম্পাদন করতে পারে না।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!