ডিগ্রি ২য় বর্ষ(২০১৯-২০) নিয়মিত ও প্রাইভেট শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফরম পূরণ চলবে ৭/০২/২০২৩ থেকে ৭/০৩/২০২৩ পর্যন্ত। *পরীক্ষা হবে কেন্দ্র খালি থাকলে এপ্রিলের শুরুতে বা ঈদের পরপরই। কলেজসমূহে ফরম পূরণ ফি ১৫০০ এর মধ্যে।

বার বার ফিরে আসে : কবিতা, শামসুর রাহমান

বার বার ফিরে আসে

কবিতা, শামসুর রাহমান

বারবার ফিরে আসে রক্তাপ্লুত শার্ট,
ময়দানে ফিরে আসে, ব্যাপক নিসর্গে ফিরে আসে,
ফিরে আসে থমথমে শহরের প্রকাণ্ড চোয়ালে।
হতাশাকে লাথি মেরে, ভয়কে বেদম লাঠি পেটা ক’রে
সবখানের শ্লোগানের ফুলকি ছড়াই।
বারবার আমাদের হাত হয় উদ্দাম নিশান,
বারবার ঝড়ক্ষুব্ধ পদ্মা হই আমরা সবাই।

আমাকেই হত্যা করে ওরা, বায়ান্নোর রৌদ্রময় পথে,
আমাকেই হত্যা করে ওরা
উনসত্তরের বিদ্রোহী প্রহরে,
একাত্তরে পুনরায় হত্যা করে ওরা আমাকেই
আমাকেই হত্যা করে ওরা
পথের কিনারে
এভন্যুর মোড়ে
মিছিলে, সভায়-
আমাকেই হত্যা করে, ওরা হত্যা করে বারবার।
তবে কি আমার
বাংলাদেশ শুধু এক সুবিশাল শহীদ মিনার হ’য়ে যাবে ?

ক-বিভাগ

শামসুর রাহমান কত সালে জন্মগ্রহণ করেন?
উত্তর : ১৯২৯, ২৪ অক্টোবর।
শামসুর রাহমান কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?
উত্তর : মাহুতটুলী, ঢাকা।
শামসুর রাহমান কত সালে মৃত্যু বরণ করেন?
উত্তর : ২০০৬, ১৭ আগস্ট।
শামসুর রাহমানের পৈতৃক নিবাস কোথায়?
উত্তর : নরসিংদীর পাড়াতলী।
শামসুর রাহমানের ডাক নাম-বাল্য নাম কী ছিল ?
উত্তর : বাচ্চু।
কর্মজীবনের শুরুতে শামসুর রাহমান কী ছিলেন?
উত্তর : সাংবাদিক।
শামসুর রাহমান কোন কোন পত্রিকায় কাজ করেছেন?
উত্তর : দৈনিক বাংলা এবং মর্নিং নিউজ।
‘আধুনিক নাগরিক কবি’ বলা হয় কাকে?
উত্তর : শামসুর রাহমানকে।
শামসুর রাহমানের প্রথম কাব্যগ্রন্থের নাম কী?
উত্তর : ‘প্রথম গান দ্বিতীয় মৃত্যুর আগে’ (১৯৬০)।
শামসুর রাহমানের অন্যান্য কাব্যগ্রন্থের নাম কী?
উত্তর : রৌদ্র করোটিতে, বিধ্বস্ত নীলিমা, নিরালোকে দিব্যরথ, নিজ বাসভূম, বন্দী শিবির থেকে (১৯৭২), দুঃসময়ের মুখোমুখি,
ফিরিয়ে নাও ঘাতক কাঁটা, আদিগন্ত নগ্ন পদধ্বনি, এক ধরনের অহংকার, শূন্যতায় তুমি শোকসভা, প্রতিদিন ঘরহীন ঘরে, ইকারুসের আকাশ, উদ্ভট উটের পিঠে চলছে স্বদেশ, মাতাল ঋত্মিক, নায়কের ছায়া, হোমারের স্বপনময় হাত, শিরোনাম মনে পড়ে না, ধুলায় গড়ার শিরস্ত্রাণ, অবিরল জলভূমি, সে এক পরবাসে, গৃহযুদ্ধের আগে, এক ফোঁটা কেমন অনল, ধ্বংসের কিনারে বসে (১৯৯২)
শামসুর রাহমানের উপন্যাসগুলোর নাম লিখ?
উত্তর : অক্টোপাস (১৯৮৩), নিয়ত মন্তাজ, অদ্ভুত আঁধার এক, এলো সে অবেলায়।
শামসুর রাহমানের শিশুতোষ রচনা কোনগুলো?
উত্তর : এলাটিং বেলাটিং, ধান ভানলে কুঁড়ো দেবো, রংধনু সাঁকো, লাল ফুলকির ছড়া।
শামসুর রাহমানের কতিায় কী ধারণ করে আছে?
উত্তর : আধুনিক নগারিক জীবন, দেশপ্রেম, মুক্তিযুদ্ধ, সামাজিক সচেতনতা এবং গণআন্দোলন।
শামসুর রাহমান সাহিত্যকর্মের জন্য কোন কোন পুরস্কার লাভ করেন?
উত্তর : ‘আদমজী পুরস্কার’ (১৯৬৩), ‘বাংলা একাডেমি পুরস্কার’ (১৯৬৯), মিৎসুবিশি পুরস্কার’ (১৯৮২), জীবনানন্দ দাশ পুরস্কার
(১৯৭৩), একুশে পদক (১৯৭৭), নাসিরউদ্দীন স্বর্ণপদক এবং স্বাধীনতা পুরস্কার (১৯৯১)।
শামসুর রাহমানের আত্মজীবনীমূলক রচনাগুলো কী কী?
উত্তর : স্মৃতির শহর (১৯৭৯) এবং কালের ধূলোয় লেখা (২০০৪)।
শামসুর রাহমানের প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের সংখ্যা কত?
উত্তর : ৬৫।
শামসুর রাহমানের ‘বারবার ফিরে আসে’ কবিতাটি কোন গ্রন্থের অন্তর্গত?
উত্তর : ‘দুঃসময়ের মুখোমুখি’।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটির কোন সময়কে ধারণ করে আছে?
উত্তর : ১৯৫২-১৯৭১
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটিকে কবি কোন বিষয়কে উপজীব্য করেছেন?
উত্তর : ঊনসত্তর সালের শহীদ আসাদুজ্জামানের রক্তমাখা শার্টকে।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটিতে বার বার কী ফিরে আসে?
উত্তর : রক্তমাখা শার্ট।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটিতে রক্তমাখা শার্ট কোথায় ফিরে ফিরে আসে?
উত্তর : থমথমে শহরের প্রকাণ্ড চোয়ালে।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটিতে কে বলেছিলো ‘আবার আসবো ফিরে’?
উত্তর :সজীব কিশোর।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটি শার্টের আস্তিন ছিঁড়ে কে পতাকা বানায়?
উত্তর :সজীব কিশোর।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটিতে কার চোখে শ্রাবণের আকাশ ভেঙে পড়ে?
উত্তর : সন্তান হারা মায়ের চোখে।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটিতে কার বুক খাঁ খাঁ গোরস্তান হয়ে যায়?
উত্তর : নববধূর।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটি বুক শূন্য করা গুলিবদ্ধ লাশ কে বহন করে?
উত্তর : এক সন্তান হারা পিতা।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটিতে কোন সময়ে তরুণ ছেলেটি রৌদ্রে খেলা করতো?
উত্তর : উনিশ শ’ ঊনসত্তরে।
‘বারবার ফিরে আসে’ কবিতাটিতে কে ধুলোর দুর্গ বানায়?
উত্তর : উনিশ শ’ ঊনসত্তরের তরুণ ছেলেটি।
‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতাটিতে কবির অনুমান অনুসারে বাংলাদেশ কী হয়ে যেতে পারে?
উত্তর : এক সুবিশাল শহীদ মিনার।
‘রক্তাপ্লুত’ শব্দের অর্থ কী?
উত্তর : রক্তে ভেজা।
‘নিসর্গ’ শব্দের অর্থ কী?
উত্তর : প্রকৃতি।
‘করুণ প্লাবন’ কী?
উত্তর : চোখের পানির বন্যা।
‘অসূর্যস্পশ্যা’ কী?
উত্তর : সূর্যের মুখ পর্যন্ত দেখেনি এমন নারী।

খ-বিভাগ

প্রশ্ন॥১॥ কবি শামসুর রাহমান সম্পর্কে তোমার মতামত উপস্থাপন কর।
প্রশ্ন॥২॥ ‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতার মূলভাব লেখ।
প্রশ্ন॥৩॥ “হাওয়ায় হাওয়ায় ওড়ে ঘোরে হাতে হাতে মিছিলে পতাকা হয়ে বার বার রক্তাপ্লুত শার্ট।”- ব্যাখ্যা কর।
প্রশ্ন॥৪॥ “একটি মায়ের চোখ থেকে করুণ প্লাবন মুছে যেতে না যেতেই আরেক মায়ের চোখ শ্রাবণের অঝোর আকাশ হয়ে যায়।”

প্রশ্ন॥১॥ কবি শামসুর রাহমানের ‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতার মূলবক্তব্য তোমার নিজের ভাষায় লিপিবদ্ধ কর।
প্রশ্ন।২।‘বাংলাদেশ শুধু এক সুবিশাল শহীদ মিনার হয়ে যাবে? এ প্রশ্নের আলোকে কবি শামসুর রাহমান বিরচিত ‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতার রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রেক্ষাপট বিশ্লেষণ কর।
প্রশ্ন॥৩॥ ‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতার বিষয়বস্তু আলোচনা প্রসঙ্গে এ কবিতার প্রেক্ষাপট বর্ণনা কর।
প্রশ্ন॥৪॥ কবি শামসুর রাহমান বিরচিত ‘বার বার ফিরে আসে’ কবিতায় দেশাত্মবোধের যে পরিচয় পাওয়া যায় তা নিজের ভাষায় লিখ।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!