Answer

বাংলাদেশে নারী আন্দোলন সংগঠন সম্পর্কে আলোচনা কর।

অথবা, বাংলাদেশে কয়েকটি নারী আন্দোলন সংস্থার বর্ণনা কর।
অথবা, বাংলাদেশে নারী আন্দোলন সংগঠন সম্পর্কে বিবরণ দাও।
অথবা, বাংলাদেশে নারী আন্দোলনে যুক্ত সংস্থাগুলো সম্পর্কে আলোচনা কর।
অথবা, বাংলাদেশে নারী আন্দোলন সংগঠন সম্পর্কে বর্ণনা কর।
উত্তর৷ ভূমিকা :
বাংলাদেশের নারী আন্দোলন মূলত উপমহাদেশের নারী আন্দোলনের এক ধারাবাহিক রূপ। তবে স্বাধীনতা উত্তরকালে সমাজ ও রাজনীতির নতুন মাত্রায় এক্ষেত্রেও নতুনত্ব সংযোজিত হয়েছে। স্বাধীন বাংলাদেশ ১৯৮৬ সালে প্রথম নারী সংগন গড়ে উঠে। “বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা সংস্থা” (BJMS) নামের এ প্রতিষ্ঠানটি জাতীয় পর্যায় থেকে জেলা ও উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত বিস্তৃত হয়েছে। নারীর আইনগত, সামাজিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে বিভিন্ন সহায়তা কর্মসূচি গ্রহণের মাধ্যমে সংগঠনটি বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করেছে। পরবর্তীকালে আরো কতিপয় নারী।সংগঠন গড়ে উঠেছে যেগুলো নারী উন্নয়নের বিভিন্ন দিক নিয়ে কাজ করে চলছে।
বাংলাদেশে নারী আন্দোলন সংগঠন : পাকিস্তান আমল হতে নারী আন্দোলন সংগঠন প্রতিষ্ঠিত হয়ে আসছে। বাংলাদেশ সৃষ্টির আগে নারীবাদী সংগঠন APWA (All Pakistan Women Association) এর জন্ম এবং LINA LIAKOT ALI ছিলেন এর প্রেসিডেন্ট। APWA তখন সকল পাকিস্তানের নারী অধিকার আদায়ে সচেষ্ট হন এবং নারী অধিকার ও স্বার্থসংক্রান্ত বিষয়ে সরকারের সাথে বিভিন্ন আলোচনা করেন।
BJMS (Bangladesh Jatia Mahila Sangstha) : ১৯৭৬ সালে বাংলাদেশের সামাজিক, অর্থনৈতিক, শিক্ষা এবং সাংস্কৃতিক অঙ্গনে নারীদের বেশি করে সুযোগ দানের উদ্দেশ্যে BJMS গঠিত হয়। সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এতে অর্থসংস্থান দেয়। জেলা ও থানা পর্যায়ে এ সংগঠন প্রথম নারী অধিকারে সচেষ্ট হয়। BJMS নারীদের স্বাবলম্বী করার জন্য বিভিন্ন প্রশিক্ষণ ও কারিগরি শিক্ষার ব্যবস্থা করে। নারীমুক্তির জন্য এ প্রতিষ্ঠান নানারকম কার্যক্রম গ্রহণ করে আসছে।
BMS (Bangladesh Mahila Samity) : বাংলাদেশ মহিলা সমিতি বাংলাদেশের নারী সংগঠনের মধ্যে সবচেয়ে প্রাচীন। ১৯৪৯ সালে গঠিত APWA পরবর্তীতে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর BMS এ রূপান্তরিত হয়। BMS বাংলাদেশে মহিলাদের পুরুষের পাশাপাশি সমান সুযোগ সুবিধা ও পুরুষ-মহিলাদের ভিতর সমতা আনন্ত্রের জন্য সংগ্রামরত।
Women for Women : Women for Women নামক এ নারী সংগঠন বাংলাদেশের নারী সংগঠনগুলোর মধ্যে অন্যতম। এটি মূলত নারী শিক্ষা এবং নারীদের বিষয়ে গবেষণাকারী প্রতিষ্ঠান। নারী শিক্ষার প্রয়োজনীয়তার উপর গুরুত্বারোপে লক্ষ্যে এ প্রতিষ্ঠান কাজ করে যাচ্ছে। এ সংগঠনের অন্যতম উদ্দেশ্য হলো সাধারণ জনগণ ও পরিকল্পনা প্রণয়নকারীদের নারী মর্যাদা সম্পর্কে সচেতন করে তোলা। এ সংগঠন নারীদের বিভিন্ন Issue তুলে ধরে, নারী বিষয়ক বিভিন্ন লেখা প্রকাশ করে। নার বিষয়ে বিভিন্ন কর্মশালা, মাসিক সেমিনার, নারীদের প্রশিক্ষণ ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের কর্মকাণ্ড প্রণয়ন করে থাকে ।
বাংলাদেশ নারী অধিকার আন্দোলন : ‘বাংলাদেশ নারী অধিকার আন্দোলন’ সংস্থাটি ১৯৮৪ সাল হতে কার্যক্রম শুরু করে। নারীদের সকল ধরনের অধিকার আদায় ও সংরক্ষণে এ সংস্থা আন্দোলন করে যাচ্ছে। যেখানে নারী অধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে, সেখানেই এ পরিষদ তার প্রতিকার করছে এবং নারী অধিকার আদায়ে সরকারের সাথে আলোচনা করে এবং
আন্দোলনের মাধ্যমে তা আরো গতিশীল হয়।
উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে বলা যায় যে, উল্লিখিত আলোচিত.সংগঠনগুলো ছাড়া আরো অনেকগুলো নারী সংগঠন বাংলাদেশে আছে। এসব সংগঠনের কাজ হলো সংগ্রাম ও আন্দোলনের মাধ্যমে নারীর অধিকার আদায় করা। নারী সংগঠনগুলো তাদের স্ব-স্ব কর্মকাণ্ডে যথেষ্ট সক্রিয় এবং নারীদের অধিকার আদায়ে অনেক সফল হয়েছে। মূলত এসব নারী সংগঠনের কার্যক্রম ও কর্মতৎপরতার কারণে আজ বাংলাদেশের নারীরা ফিরে পেয়েছে তাদের অধিকার।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!