Answer

প্রাবন্ধিক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সম্পর্কে তোমার মতামত উপস্থাপন কর।

উত্তর : ১৮৬১ খ্রিস্টাব্দের ৭ মে (বাংলা ১২৬৮ সালের ২৫ বৈশাখ) বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কলকাতার জোড়াসাঁকো ঠাকুর বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা ছিলেন মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর এবং পিতামহ ছিলেন প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুর। রবীন্দ্রনাথের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার কোন সনদপত্র না থাকলেও পারিবারিক উদ্যোগে তিনি বহুমুখী শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছিলেন। যার কারণে অগাধ পাণ্ডিত্য অর্জনে সক্ষম হয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ। ১৭ বছর বয়সে ব্যারিস্টারি পড়ার জন্য বিলেত গেলেও দেড় বছর পর দেশে ফিরে তিনি পিতার জমিদারি দেখাশোনার দায়িত্ব নিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল পরিভ্রমণ করেন। কৈশোরকাল থেকেই রবীন্দ্রনাথ সাহিত্যচর্চায় মনোনিবেশ করেন। ১৮৭৭ সালে ‘ভারতী’ পত্রিকায় তাঁর প্রথম ছোটগল্প ‘ভিখারিণী’ এবং প্রথম উপন্যাস ‘করুণা’ প্রকাশিত হয়। ১৮৮২ সালে তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘সন্ধ্যা সঙ্গীত’ প্রকাশিত হলে সাহিত্যসম্রাট বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় তাঁকে অভিনন্দিত করেন। এরপর রবীন্দ্রনাথকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি। বাংলা সাহিত্যের প্রত্যেকটি শাখায় তিনি নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে ১৯১৩ খ্রিস্টাব্দে ‘গীতাঞ্জলি’ কাব্য রচনা করে প্রথম এশীয় হিসেবে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থসমূহের মধ্যে ‘মানসী’ (১৮৯০), ‘সোনার তরী’ (১৮৯৪), ‘চিত্রা’ (১৮৯৬), ‘ক্ষণিকা’ (১৯০০), ‘গীতাঞ্জলি’ (১৯১০), ‘বলাকা’ (১৯১৫) প্রভৃতি কাব্য; ‘চোখের বালি’ (১৯০৩), ‘গোরা’ (১৯১০), ‘যোগাযোগ’ (১৯২৯) প্রভৃতি উপন্যাস এবং নাটকের মধ্যে ‘বিসর্জন’ (১৮৮৯), ‘রাজা’ (১৯১০), ‘রক্তকরবী’ (১৯২৬) প্রভৃতি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। ১৯৪১ খ্রিস্টাব্দের ৭ আগস্ট (বাংলা ১৩৪৮ সালের ২২ শ্রাবণ) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর কলকাতায় মৃত্যুবরণ করেন।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!