ডিগ্রি ২য় বর্ষ(২০১৯-২০) নিয়মিত ও প্রাইভেট শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফরম পূরণ চলবে ৭/০২/২০২৩ থেকে ৭/০৩/২০২৩ পর্যন্ত। *পরীক্ষা হবে কেন্দ্র খালি থাকলে এপ্রিলের শুরুতে বা ঈদের পরপরই। কলেজসমূহে ফরম পূরণ ফি ১৫০০ এর মধ্যে।

প্রশা৩৯৷ জেলা পরিষদের সমাজকল্যাণমূলক কর্মসূচিসমূহ উল্লেখ কর।


অথবা, জেলা পরিষদের সমাজকল্যাণ কার্যাবলি লিখ।
অথবা, জেলা পরিষদের সমাজকল্যাণমূলক কাজের বর্ণনা দাও।
অথবা, জেলা পরিষদের সমাজকল্যাণমূলক ভূমিকা উল্লেখ কর।
অথবা, জেলা পরিষদের সমাজকল্যাণমূলক কাজগুলো কী কী?
অথবা, জেলা পরিষদের সমাজকল্যাণমূলক কার্যাবলি বর্ণনা কর।

ভূমিকা : জেলা পরিষদ আইন ২০০৯ অনুযায়ী জেলা পরিষদের কার্যাবলি দুইপ্রকার। যথা : আবশ্যিক ও ঐচ্ছিক। পরিষদ তার তহবিলের সংগতি অনুযায়ী এই কার্যাবলি সম্পাদন করে থাকে।
জেলা পরিষদের সমাজকল্যাণমূলক কর্মসূচি : জেলা পরিষদ আইন ২০০৯ এর ২৭ ধারার (৩) নং উপধারা অনুযায়ী প্রথম তফসিলের দ্বিতীয় অংশে জেলা পরিষদের ঐচ্ছিক কার্যাবলির উল্লেখ রয়েছে। জেলা পরিষদের সমাজকল্যাণমূলক কর্মসূচিসমূহ ঐচ্ছিক কার্যাবলির অন্তর্ভুক্ত। যা নিম্নরূপ-
১. দুঃস্থ ব্যক্তিদের জন্য কল্যাণ সদন, আশ্রয় সদন, এতিমখানা, বিধবা সদন এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠান স্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ।
২. মৃত নিঃস্ব ব্যক্তিদের দাফনের ও অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার ব্যবস্থা করা।
৩. ভিক্ষাবৃত্তি, পতিতাবৃত্তি, জুয়া, মাদকদ্রব্য সেবন, মদ্যপান, কিশোর অপরাধ এবং অন্যান্য সামাজিক অনাচার প্রতিরোধ।
৪. জনগণের মধ্যে সামাজিক, নাগরিক এবং দেশপ্রেমমূলক গুণাবলি উন্নয়ন এবং গোত্র বা গোষ্ঠীগত, বর্ণগত এবং সম্প্রদায়গত কুসংস্কার নিরুৎসাহিত করা।
৫. সমাজ সেবার জন্য স্বেচ্ছাসেবকদের সংগঠিতকরণ।
৬. দরিদ্রদের জন্য আইনগত সহায়তা।
৭. নারী ও পশ্চাৎপদ শ্রেণির পরিবারের সদস্যদের কল্যাণমূলক কার্যক্রম গ্রহণ ।
৮. শালিসি ও আপসের মাধ্যমে বিরোধ নিষ্পত্তির ব্যবস্থা গ্রহণ।
৯. সমাজকল্যাণ ও সমাজ উন্নয়নমূলক অন্যান্য ব্যবস্থা গ্রহণ ।
উপসংহার : পরিশেষে বলা যায় যে, জেলা পরিষদ সমাজকল্যাণে বিভিন্ন ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকে। দুঃস্থ ব্যক্তিদের আশ্রয় বা কল্যাণের পাশাপাশি সমাজের অনাচার এবং অপরাধ প্রতিরোধে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!