ডিগ্রি ২য় বর্ষ(২০১৯-২০) নিয়মিত ও প্রাইভেট শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার ফরম পূরণ চলবে ৭/০২/২০২৩ থেকে ৭/০৩/২০২৩ পর্যন্ত। *পরীক্ষা হবে কেন্দ্র খালি থাকলে এপ্রিলের শুরুতে বা ঈদের পরপরই। কলেজসমূহে ফরম পূরণ ফি ১৫০০ এর মধ্যে।

পারিবারিক ক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়ন সংক্ষেপে আলোচনা কর।

অথবা, পারিবারিক ক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়নের চিত্র তুলে ধর।
অথবা, পারিবারিক ক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়ন সংক্ষেপে বর্ণনা কর।
অথবা, পারিবারিক ক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়ন সম্পর্কে যা জান লিখ ।
অথবা, পারিবারিক ক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়ন সম্পর্কে সংক্ষেপে বিবরণ দাও।
উত্তর৷ ভূমিকা :
বর্তমান গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় নারীর ক্ষমতায়ন একটি গুরুত্বপূর্ণ আলোচ্যবিষয়। কেননা গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থাকে কার্যকর করতে হলে ক্ষমতায় নারী-পুরুষ সমান অংশগ্রহণ আবশ্যক। নারীর ক্ষমতায়নের প্রাথমিক পর্যায় হলো পরিবার। পরিবারে যদি নারীর ক্ষমতায়নের ব্যবস্থা করা যায় তাহলে সর্বক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়নের
পথ প্রশস্ত হবে।
পারিবারিক ক্ষেত্রে নারীর ক্ষমতায়ন : বাংলাদেশে পরিবার সম্প্রদায় ও সমাজে নারী ও পুরুষের সম্পর্ক নির্ধারিত হয় পিতৃতান্ত্রিক মতাদর্শ দ্বারা। ক্ষমতা বিন্যাসের ভিত্তিতে পারিবারিক কাঠামো পিতৃতান্ত্রিক। পারিবারিক সিদ্ধান্তে পুরুষদের মতামতই প্রাধান্য পায়। সামাজিকীকরণের নিয়ম অনুসারে পারিবারিক কাঠামোতে নারীর সন্তান জন্মদান ও প্রতিপালনের পাশাপাশি একজন মজুরি হীন অদৃশ্য শ্রমিকের ভূমিকা পালন করে। এমনকি পুরুষতান্ত্রিক সমাজে নারীর খাদ্যাভ্যাস, শ্রম বিভাগ পরিবারের সদস্যদের প্রতি তার সম্পর্ক ও আচরণ প্রভৃতি নির্দিষ্ট করে রেখেছে। অর্থনৈতিকভাবে নারীদের কাজের মূল্যায়ন না হওয়া এবং একই সাথে পুরুষদের পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতার কারণে নারীরা পারিবারিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় এখনো পর্যন্ত নিজেদেরকে অন্তর্ভুক্ত করতে সর্বাংশে যথার্থ হয়নি।
উপসংহার : পরিশেষে আমরা বলতে পারি, আমাদের সমাজ কাঠামো এমনভাবে সাজানো যেখানে নারীদের সিদ্ধান্ত গ্রহণ থেকে দূরে রাখা হয়। এটা কোনো জাতির উন্নয়নের ইতিবাচক দিক নয়। তাই পরিবারের সকল স্তরে নারী ক্ষমতায়ন খুব জরুরি।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!