Answer

পরিবেশের উপর গ্রাম-শহর স্থানান্তরের প্রভাব সম্পর্কে যা জান লিখ ।

অথবা, পরিবেশের উপর গ্রাম ও শহর পরিবর্তনের প্রভাবসমূহ আলোচনা কর।
অথবা, পরিবেশের উপর গ্রাম শহর স্থানান্তরের প্রভাব তোমার নিজের ভাষায় বর্ণনা কর।
অথবা, পরিবেশের উপর গ্রাম ও শহর পরিবর্তনের প্রভাবগুলো বিশ্লেষণ কর।
উত্তর৷ ভূমিকা :
জন্ম, মৃত্যুর সাথে সাথে জনবিজ্ঞানের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চলক হলো Migration বা স্থানান্তর। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় প্রাচীনকাল থেকে মানুষ জীবনযাত্রা নির্বাহ ও খাদ্যের অন্বেষণে একস্থান হতে অন্যস্থানে
ঘুরে বেড়াত। পরবর্তীতে মানুষ স্থায়ীভাবে বসবাসের উদ্দেশ্যে, দৈনন্দিন কাজের সন্ধানে, রাজনৈতিক শিক্ষা প্রভৃতি কারণে বাধ্য হয়ে স্থান পরিবর্তন করে থাকে। কারণ জীবনযাত্রার মান সর্বত্র এক নয়। মানুষের এ একস্থান থেকে অন্যস্থানে গমনকেই স্থানান্তর বলা হয়। আধুনিককালে জনসংখ্যা সম্পর্কিত বিভিন্ন তত্ত্ব ও তথ্য সংগ্রহ বিশ্লেষণের জন্য ‘Migration Demography এর একটি গুরুত্বপূর্ণ চলকরূপে বিবেচিত। স্থান পরিবর্তনের বিষয়টি ভিন্ন ভিন্ন প্রকৃতির উপর নির্ভর করে। অর্থাৎ, স্থানান্তরের কারণ ও প্রকৃতির কোন শেষ নেই। পরিবেশের উপর গ্রাম-শহর স্থানান্তরের প্রভাব : পরিবেশের উপর গ্রাম-শহর স্থানান্তরের মারাত্মক প্রভাব
রয়েছে। যে হারে মানুষ গ্রাম হতে শহরে স্থানান্তরিত হচ্ছে তাতে আগামী ২০৫০ সাল নাগাদ বাংলাদেশের ৫০% লোক শহরে বসবাস শুরু করবে। পরিবেশের উপর গ্রাম-শহর স্থানান্তরের যে প্রভাব তা নিম্নে আলোচিত হলো:
১. জনসংখ্যার আধিক্য : গ্রাম-শহর স্থানান্তরের ফলে শহরের জনসংখ্যা দ্রুত বেড়ে চলেছে। জনসংখ্যার আধিক্য ঘটার কারণে শহরে নানা ধরনের প্রভাব বাড়ছে। এর ফলে শহরাঞ্চলে সৃষ্টি হচ্ছে বিভিন্ন সমস্যা। যথা :
ক.আবাসন সমস্যা,
খ.যানবাহন সমস্যা ও
গ.পরিবেশ দূষিত হয়ে যাচ্ছে।
তাই শহরের জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রিত রাখা সম্ভব না হলে এ সমস্যাগুলো শহরের পরিবেশের উপর দিনের পর দিন মারাত্মক প্রভাব ফেলবে।
২. অপরিকল্পিত নগরায়ণ : আমাদের দেশের শহরগুলো কোন রকম পরিকল্পনা ছাড়াই গড়ে উঠেছে। ক্রমবর্ধমান শহরগুলোতে দিনের পর দিন নতুন নতুন স্থাপনা, ঘরবাড়ি, অফিস-আদালত গড়ে উঠেছে কোনো প্রকার সরকারি অনুমোদন ব্যতিরেকে। ফলে বেড়ে যাচ্ছে অতিরিক্ত আবাসিক এলাকার সাথে সাথে অতিরিক্ত বাণিজ্যিক এলাকা। শহরের আয়তন অনুপাতে এ হার অত্যন্ত বেশি, যার ফলে শহরের পরিবেশের উপর এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে।
৩. বেকারত্বের সৃষ্টি : অতিরিক্ত জনসংখ্যার কারণে শহর এলাকার কর্মক্ষেত্রগুলোতেও চাপের সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে দেখা দিচ্ছে কর্মসংস্থানের অপ্রতুলতা। বেকারত্বের কারণে অনেক যুবক কুপথে নিজেকে ধাবিত করছে, যার ফলে পরিবেশ ও সমাজের উপর এর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, খুন, রাহাজানি বেকার যুবকদেরকে আয়ের পথ
করে দিচ্ছে।
৪. অপরিকল্পিত শিল্পায়ন : অপরিকল্পিত শিল্পায়ন শহরের পরিবেশের উপর ব্যাপক প্রভাব রাখে। আমাদের দেশে গ্রামীণ জনগোষ্ঠী গ্রাম হতে শহরে আসে কাজের আশায়। শিল্পকারখানায় চাকরি করে অনেকেই তাদের জীবিকানির্বাহ করে। এসব শিল্পকারখানাগুলো যদি শুধুমাত্র শহরে স্থাপিত না হয়ে দেশের গ্রামাঞ্চলের আশেপাশে এবং গ্রামাঞ্চলে স্থাপিত হতো তবে গ্রামীণ জনগোষ্ঠীকে আরো কাজের আশায় শহরে পাড়ি জমাতে হতো না। ফলে আর গ্রাম-শহর স্থানান্তর হতো; না। ফলে আমাদের দেশের শহরগুলোতে অধিক জনসংখ্যার চাপে এর পরিবেশে বিনষ্ট হতো না।
৫. নিত্যপ্রয়োজনীয় বিষয়াদির অপ্রতুলতা সৃষ্টি : আমাদের শহর জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় কিছু বিষয় আছে যা ছাড়া জীবন অচল। পানি, গ্যাস, বিদ্যুৎ এর মধ্যে অন্যতম। গ্রাম-শহর স্থানান্তরের ফলে শহরে অধিক মানুষের চাপে বিষয়গুলোর উপরও চাপ পড়ে। ফলে শহরবাসীরা নিত্যপ্রয়োজনীয় এসব বিষয়গুলোর অপ্রতুলতায় ভোগে।
৬. পয়ঃনিষ্কাশন সমস্যা : Drainage ব্যবস্থা আমাদের শহরগুলোতে খুব অপরিকল্পিত। রাস্তার মোড়ে মোড়ে দেখা যায় নোংরা ময়লা আবর্জনা পড়ে থাকে। গ্রাম-শহর স্থানান্তরের ফলে শহরে অধিক মানুষ বসবাস করে। বেশি মানুষেরা বেশি ময়লা আবর্জনা সৃষ্টি করে। যে হারে ময়লা আবর্জনার উদ্ভব হয়, সে হারে তা নিষ্কাশন করা সম্ভব হয় না। আমাদের দেশের City Corporation এর অধিভুক্ত শহর কিংবা অন্যান্য শহরগুলোতে। তাই গ্রাম-শহর স্থানান্তর, পয়ঃনিষ্কাশন অসুবিধার কারণেও পরিবেশের উপর ব্যাপক প্রভাব ফেলে।
৭. কৃষিজাত দ্রব্যের উৎপাদন ব্যাহত : গ্রামীণ জনগোষ্ঠীরা শহরে চলে আসে ফলে গ্রামের কৃষিকাজ ব্যাহত হয়। কৃষিকাজে ব্যাঘাত ঘটলে কৃষিজাত দ্রব্য উৎপাদন ও ব্যাহত হয়। দেশের প্রধান উৎপাদনশীল দ্রব্য এসব কৃষিজাত পণ্যগুলো। জাতির মেরুদণ্ড আমাদের কৃষি। কৃষি উৎপাদন ব্যাহত হলে তা পরিবেশের উপর প্রভাব ফেলে। নষ্ট হয় জমির অনুৎপাদনশীলতায় আমাদের কৃষির উপর নির্ভরশীল পরিবারগুলোর অভাবের তাড়নায় নানারকম অপুষ্টিজনিত রোগে ভোগে।
৮. শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উপর চাপ সৃষ্টি : গ্রাম-শহর স্থানান্তর শিক্ষাগত কারণেও হয়ে থাকে। শহরের স্কুল- কলেজগুলোতে পরিসর অনুযায়ী ছাত্রসংখ্যা বেশি হয়ে গেলে তা স্কুলের পরিবেশের উপর সমস্যার সৃষ্টি করে। যদি ১০০ জন ছাত্রের নির্ধারিত ক্লাসে ১৩০ জন ভর্তি হয় তবে তা অবশ্যই স্বাস্থ্যপ্রদ নয় সে ক্লাসের জন্য এমনকি ঐ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের
জন্যও। তাই গ্রাম-শহর স্থানান্তর এভাবে শহুরে পরিবেশের উপর ব্যাঘাত ঘটায়।
৯. মৌল মানবিক চাহিদার অপূরণজনিত সমস্যা : গ্রাম-শহর স্থানান্তরের ফলে শহরে অধিক লোকেরা বসবাস করে থাকে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, রাস্তাঘাটসহ সকল স্থানে বাড়তি মানুষের চাপ সৃষ্টি হয়। ফলে যানজট লেগে থাকে। এছাড়া মানুষের মৌল মানবিক চাহিদার উপর ব্যাঘাত ঘটে, যার দরুন আবাসিক সমস্যা, চিকিৎসা সমস্যা, শিক্ষাগত সমস্যা, বস্ত্রের ভাব, খাদ্যের অভাব ও সর্বশেষে চিত্তবিনোদনের অভাব দেখা দেয়। শহর জনসমষ্টির জন্য এটি ভয়াবহ সমস্যার জন্ম দেয়। কেননা, এসব মৌলিক চাহিদার অপূরণজনিত সমস্যার কবলে পড়ে তাদের জীবন দুর্বিষহ হয়ে পড়ে।
উপসংহার : উপর্যুক্ত আলোচনার পরিশেষে বলা যায় যে, গ্রাম-শহর স্থানান্তর শহর সমাজের পরিবেশের উপর ব্যাপক প্রভাব সৃষ্টি করে। এ প্রভাব কোনোদিক থেকেই ইতিবাচক নয় শহরের পরিবেশের উপর। নেতিবাচক প্রভাবই বেশি লক্ষ্য করা যায় গ্রাম-শহর স্থানান্তরের প্রভাবে। বাংলাদেশের গ্রামীণ জনগোষ্ঠী যারা, Rural-Urban Migration
করে শহরে জনসমষ্টিতে পরিণত হয় তাদের উপর এ প্রভাব বেশি মাত্রায় ভয়াবহ রূপ দেখা দেয়। আমাদের দেশের শহরগুলো থেকে যদি কিছু কিছু শিল্পকারখানা গ্রামের দিকে স্থাপন করে তবে এ গ্রাম-শহর অনেকাংশে কমে যাবে, যা আমাদের অর্থনীতি ও পরিবেশের জন্য অত্যন্ত সুপ্রভাব বয়ে নিয়ে আসবে বলে আশা রাখি।

পরবর্তী পরীক্ষার রকেট স্পেশাল সাজেশন পেতে হোয়াটস্যাপ করুন: 01979786079

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!